ঢাকা, শুক্রবার, আগস্ট ৬, ২০২১

শিরোনামঃ

৫৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি মার্চে

৫৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি মার্চে

স্টাফ রিপোর্টার : অবশেষে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে (এমপিওভুক্ত) শিক্ষক নিয়োগের জটিলতা অবসান হচ্ছে। প্রায় দুই বছর ধরে বন্ধ থাকার পর আগামী মাসে ৫৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে যাচ্ছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। তার আগে এ নিয়োগের আইনি দিক যাচাই বাছাই করে চূড়ান্ত মতামত ও সিদ্ধান্ত নিতে আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতামত পাওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে বলে এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) মো. আশরাফ উদ্দিন বলেন, তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি জারির জটিলতা কেটেছে। আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত পাওয়ার পর আমরা এখন অন্যান্য আইনি দিক যাচাই বাছাইর কাজ শেষ পর্যায়ে। আগামী সপ্তাহে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাঠানো হবে। মন্ত্রণালয়ের মতামত পাওয়া মাত্র তা জারি করা করা হবে বলে জানান তিনি।  
এ প্রসঙ্গে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, সারাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শূন্য পদগুলো দ্রুত পূরণ করতে সরকারের তাগাদা রয়েছে। আমরা চাই দ্রুত সময়ের মধ্যে এ নিয়োগটা শেষ করতে । এনটিআরসিএ’র মতামত পাওয়ার পর দ্রুত সময়ের সেটি নিষ্পত্তি করে পাঠানো হবে। আমরা চাই,  মুজিব বর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তিতে সব শূন্য পদে নিয়োগ দিতে। আশা করছি এ বছরের মধ্যে এ বড় নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হবে।
জানা গেছে, দ্রুত সময় এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে প্রস্ততি শুরু করেছে এনটিআরসিএ। সেজন্য আদালতে কিছু আদেশ আছে সেগুলোর যাচাই বাছাই করে শূন্য প্রকৃত পদের বিপরীতে এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে। এছাড়াও আবেদন প্রক্রিয়া কোন পদ্ধতিতে হবে তার কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা হচ্ছে।
জানা গেছে, বর্তমানে ৫৭ হাজারের কিছু বেশি পদ শূন্য রয়েছে। এরমধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভুলের কারণে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়ে নিয়োগ না পাওয়া এক হাজার ২৮৪টি পদে আগের নিয়োগের ভুক্তভোগীদের নিয়োগ সুপারিশ করা হয়েছে। সে হিসেবে ৫৬ হাজারের মত শূন্যপদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হতে পারে।
প্রসঙ্গত, বেসরকারি শিক্ষক পদে নিয়োগের সুযোগ পেতে ১৩তম নিবন্ধনধারীরা রিট মামলা করেছিলেন। রিটকারী দুই হাজার প্রার্থীকে আবেদনের সুযোগ দিতে আদালতের নির্দেশনাও আছে। এছাড়া যাদের বয়স ৩৫ বছর হয়ে গেছে তাদের আবেদনের সুযোগের বিষয়ে আদালতের নির্দেশনা আছে।
এদিকে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকা বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম দ্রু শুরু করতে আন্দোলন করছেন নিয়োগপ্রত্যাশীরা। ১৪ ফেব্রুয়ারি এনটিআরসিএ’র সামনে তারা প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন করেন। এ সময় তারা হুঁশিয়ারি দেন, আগামী এক মাসের মধ্যে নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা না হলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ১-১৫তম ব্যাচের নিবন্ধনধারীরা হাতে বিভিন্ন প্লাকার্ড ও ফেস্টুন নিয়ে এবং মাথায় সাদা কাপড় ও মুখে কালো ফিতা বেঁধে এনটিআরসিএ’র সামনে জড়ো হন।
নিয়োগপ্রত্যাশীরা জানান, সারাদেশে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রায় ৫৭ হাজার শূন্যপদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। অথচ নানা অজুহাতে শিক্ষক নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হচ্ছে না। দ্রুত গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার জন্য তারা প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন করতে বাধ্য হয়েছেন।