ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২০, ২০২০

শিরোনামঃ

size-218*80

size-218*80

size-218*80

নিয়মিত ক্লাস না নিলে শিক্ষকদের পদোন্নতি হবে না: জবি উপাচার্য

নিয়মিত ক্লাস না নিলে শিক্ষকদের পদোন্নতি হবে না: জবি উপাচার্য

 ইউনিভার্সিটি রিপোর্টার : শিক্ষকরা নিয়মিত ক্লাস না নিলে তাদের পদোন্নতি দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান।

তিনি বলেন, আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা নিয়মিত আসবেন না, নিয়মিত বাচ্চাদের ক্লাসে যাবেন না, আমি তাদের পদন্নতি দেবো না। প্রয়োজনে তাদের এক একজনকে অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর হিসেবেই চাকরি জীবন পার করতে হবে। শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উপস্থিতি নেওয়ার মতো শিক্ষকদের উপস্থিতির খবরও আমি নিচ্ছি।

সোমবার (১৫ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের উদ্যোগে ‘ইন্ডাস্ট্রিয়াল অর্গানাইজেশন ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে শিল্পমনোবিজ্ঞান প্রতি জোর দিয়ে উপাচার্য বলেন, শিল্প মনোবিজ্ঞান বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে অনেক উন্নত। তারা জানে ইন্ডাস্ট্রিতে একজন শিল্পমনোবিজ্ঞানীর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। আমাদের দেশে আমরা এখনও সে অবস্থায় যেতে পারিনি। আমাদের বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির মালিক, শিল্পপতিদের বুঝাতে হবে, মনোবিজ্ঞানীদের প্রয়োজনীয়তা ইন্ডাস্ট্রিতে আছে। এ দেশে শিল্পপতিদের বাধ্য করতে হবে, যেন একজন করে মনোবিজ্ঞানী নিয়োগ দেওয়া হয়।

জবি উপাচার্য বলেন, দেশে যত রোগী মারা যায়, তার জন্য দায়ী হয় ডাক্তাররা। আবার যত সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে, তার জন্য সাজা হয় চালকদের । কিন্তু যারা নিয়ম ভেঙে রাস্তা পারাপার হন, অসেচতনভাবে রাস্তায় চলেন, তাদেরও সাজার ব্যবস্থা করতে না পারলে রাস্তায় দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে মনোবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. অশোক কুমার সাহা বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় মনোবিজ্ঞান বিভাগের উদ্যোগে শিল্পমনোবিজ্ঞান সমিতি গঠনের ঘোষণা দেন। এ লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি জাতীয় সম্মেলনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের কাছে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফারজানা আহমেদের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মদ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইফ অ্যান্ড আর্থ সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. কাজী সাইফুদ্দীন। দুই দিনব্যাপী এই কর্মশালা শেষে প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করা হবে।

size-218*80

size-218*80

size-218*80

size-218*80